VPN কি ? ভিপিএন কেন ব্যবহার করা হয় ? VPN এর কাজ কি ? (VPN in Bangla)

 আমরা যারা মূলত স্মার্টফোন ল্যাপটপ বা কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকি তারা কিন্তু অবশ্যই VPN নামটা শুনেছি এবং অনেকেও ভিপিএন ব্যবহার করে থাকে । এই ভিপিএন এর ব্যবহার কিন্তু দিন দিন প্রচুর পরিমাণে বেড়ে চলেছে, কিন্তু VPN মানে কি ? VPN ব্যবহারের নিয়ম ? ভিপিএন এর পূর্ণ রুপ কি সেগুলো আমরা জানি না , এবং অনেকেই ভাবে যে VPN দিয়ে কি ফ্রিতে নেট চালানো যায় সেই সমস্ত প্রত্যেকটি বিষয় নিয়ে আজকের আর্টিকেলে আমরা আলোচনা করব।


VPN কি ? ভিপিএন কেন ব্যবহার করা হয় ? VPN এর কাজ কি
What is VPN in bengali


VPN কি ? (VPN explain in bengali)

VPN এর পূর্ণরূপ বা পুরো নাম হল virtual private network (ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক) । আপনি সিকিউর ভাবে অন্য একটি নেটওয়ার্ক ব্যবহার করা হলো ভিপিএন এর কাজ আমরা যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করে থাকি তাদের সবার কিন্তু একটি ঠিকানা বা address রয়েছে যাকে যাকে আইপি এড্রেস বলে । Ip অ্যাড্রেস কি সেটা আমরা আগেই আলোচনা করেছি। এখান থেকে বোঝা যায় যে আপনি কোথা থেকে কোন দেশ থেকে ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন।


কিন্তু ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক ব্যবহার করলে কেউ কিন্তু বুঝতে পারবেন না আপনি কোথা থেকে কোন দেশ থেকে নেটওয়ার্ক ব্যবহার করছেন অর্থাৎ আপনারা secure ভাবে নেটওয়ার্ক ব্যবহার করতে পারবেন ভিপিএন এর মাধ্যমে। যখন ভিপিএন কানেক্ট করবেন তখন কিন্তু আপনাকে যেকোন একটি country সিলেট করতে হবে। তো আপনারা যে দেশটি সিলেট করবেন সেই দেশটি কিন্তু দেখাবে। অর্থাৎ আপনারা যদি ইন্ডিয়া থেকে আমেরিকা কান্ট্রি সিলেক্ট করে ভিপিএন ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কিন্তু তারা ভাববে যে আপনি সত্যি সত্যি আমেরিকা থেকেই ওই নেটওয়ার্ক টা ব্যবহার করছেন।


আরও পড়ুন : WiFi কি ? WiFi কিভাবে কাজ করে ? ওয়াইফাই এর সুবিধা ও  অসুবিধা



VPN কিভাবে কাজ করে : 

আপনাদেরকে উদাহরণ স্বরূপ বুঝিয়ে দিচ্ছি যে ভিপিএন কিভাবে কাজ করে, ধরুন আপনি WhatsApp বা Facebook খুলতে চাইছেন ,তো আপনি যখন ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ খুলতে যান তখন কিন্তু আপনার নেটওয়ার্ক প্রোভাইডারের কাছে একটি আদেশ যায় network provider বলতে আপনি যে নেটওয়ার্ক ব্যবহার করছেন জিও, ভোডাফোন, এয়ারটেল বা ওয়াইফাই ব্রডব্যান্ড ইত্যাদি।সেই নেটওয়ার্ক প্রোভাইডার কিন্তু ফেসবুক বা হোয়াটসঅ্যাপ এর সঙ্গে কানেক্ট করে দে তারপর আপনি খুব সহজেই সেগুলো খুলতে পারেন।


অনেক সময় অনেক ওয়েবসাইট খোলা যায় না সরকার থেকে সেগুলো কে বরণ করে দেওয়া হয় তখন কিন্তু এই ভার্চুয়াল প্রাইভেট নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে সেই ব্লক ওয়েবসাইট গুলো খুলতে পারেন । ধরুন আপনার দেশে ফেসবুক খুলতে পারবেন না, সে ক্ষেত্রে ভিপিএন অ্যাপস টি ওপেন করে আপনাকে যে কোন একটা দেশ সিলেক্ট করতে হবে তো আপনারা যেকোনো একটি দেশ সিলেক্ট করে দিবেন তারপর কিন্তু আপনারা খুব সহজে ফেসবুক খুলতে পারবেন। এবং কেউ জানতে পারবে না যে আপনি কোন দেশের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করছেন এইভাবে মূলত ভিপিএন কাজ করে থাকে।


ভিপিএন ব্যবহার করাটা কি নিরাপদ :

আপনি যখন vpn এর কোনো একটি ব্লক ওয়েবসাইট ওপেন করছেন তখন কিন্তু সেই ওয়েবসাইট কোম্পানিগুলো আপনাদের অরিজিনাল আইপি এড্রেস দেখতে পাবে না, শুধুমাত্র ভিপিএন কোম্পানি আপনার অরজিনাল ইন্টারনেট প্রটোকল অ্যাড্রেস দেখতে পাবে। সেক্ষেত্রে নিরাপদ বলা যেতে পারে কিন্তু আপনি যদি ভিপিএন ব্যবহার করে অবৈধ কাজ করেন তাহলে কিন্তু নিরাপদ নয়, যেমন ভিপিএন ব্যবহার করে আপনার ইউটিউবে নিজের ভিডিও দেখে ভিউজ বাড়াচ্ছেন বা ওয়েবসাইটের পেজ ভিউজ বাড়াচ্ছেন তাহলে কিন্তু সেটি নিরাপদ নয়। এছাড়া প্লেস্টরে অনেক ফ্রি ভিপিএন অ্যাপস রয়েছে অর্থাৎ কম ডাউনলোড যুক্ত ওই ভিপিএন অ্যাপস গুলো ব্যবহার করবেন না।


VPN ব্যবহারের সুবিধা : 

ভিপিএন ব্যবহারের কিছু সুবিধা হল


১. VPN ব্যবহার করে আপনারা যে কোন ব্লক ওয়েবসাইট ওপেন করতে পারবেন বা অ্যাক্সেস করতে পারবেন।


২. আপনারা যখন কোন ব্লক ওয়েবসাইট ওপেন করবেন সেখানে কিন্তু আপনাদের অরিজিনাল আইপি অ্যাড্রেস শো করবে না সেটা কিন্তু হাইড থাকবে।


৩. আপনি যদি ভিপিএন ব্যবহার করে থাকেন তাহলে কিন্তু আপনাকে ট্রাক করা খুব কঠিন একটা কাজ।


VPN ব্যবহারের অসুবিধা :

virtual private network ব্যবহারে কিছু অসুবিধা বা ভিপিএন এর কিছু ক্ষতিকারক দিক  হলো


১.  বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ফ্রি ভিপিএন সার্ভিসগুলো পেইড হয় এবং কিছু ফ্রি ভিপিএন ও রয়েছে সেগুলো ব্যবহার করলে প্রচুর অ্যাড আসে।


২.  কোন একটি আপনার নিজের ওয়েবসাইটে ভিপিএন ব্যবহার করে বারবার লগ ইন লগ আউট করছেন, তাহলে কিন্তু সেই ওয়েবসাইট আপনাকে ব্লক করে দিতে পারে ।


VPN কিভাবে ব্যবহার করব বা VPN কিভাবে সেট করব: 

ভিপিএন ব্যবহার করার নিয়ম বা  ব্যবহার করা প্রসেস খুব সহজ একটি ব্যাপার। আপনি যদি মোবাইল ভিপিএন ব্যবহার করতে চান তাহলে প্লেস্টরে অনেক ফ্রি ভিপিএন অ্যাপস রয়েছে সেগুলো ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারেন। এর জন্য প্লে স্টোরে ভিপিএন লিখে সার্চ করবেন তারপর আপনারা যে কোন ভিপিএন  অ্যাপস ডাউনলোড করে ব্যবহার করতে পারেন, তার মধ্যে সবথেকে ভালো ফ্রি ভিপিএন অ্যাপস হলো Turbo  VPN। যদি বলা হয় কোন মোবাইলে কোন ভিপিএন সবচেয়ে ভালো তাহলে আমি অবশ্যই সাজেস্ট করবো  Turbo VPN। 


আশা করি আপনারা ভিপিএন কি এই  সম্পর্কিত বিভিন্ন তথ্য ডিটেইলসে জানতে পেরেছেন আপনাদের যদি বুঝতে কোন অসুবিধা হয় তাহলে নিচে অবশ্যই আমাকে কমেন্ট করে জানাতে পারেন ধন্যবাদ




4 Comments

Please do not enter any spam link in the comment box.

Post a Comment
Previous Post Next Post

Ads

Ads